কক্সবাজারে অসহায় মানুষের পাশে আওয়ামীলীগ নেতা শাহেদ আলী


coxmorning প্রকাশের সময় : মে ১৬, ২০২১, ৫:১১ অপরাহ্ন /
কক্সবাজারে অসহায় মানুষের পাশে আওয়ামীলীগ নেতা শাহেদ আলী

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য, এই কথাটি স্বরণ রেখে করোনকালিন সময়ে অসহায় মানুষের পাশে এসে দাড়িয়েছে কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তরুন সমাজ সেবক শাহেদ আলী শাহেদ।

গত বছরের মার্চ মাস থেকে কক্সবাজার জেলাসহ পুরো বাংলাদেশে লকডাউন ঘোষনা করা হলে কক্সবাজারের অন্যতম পৌর এলাকার ১২ নং ওয়ার্ড়ের মানুষ অসহায় হয়ে পড়ে। কলাতলীর লাইট হাউস পাড়া, ফাতের ঘোনা,উত্তর পাড়াসহ বৃহত্তর কলাতলী এলাকায় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে শাহেদ আলী।

১২ নং ওয়ার্ড় সমুদ্র বেষ্টিত হওয়ার কারনে এখানকার বেশিভাগ মানুষ পর্যটকদের আগমনের উপর নির্বর করে তাদের আয়ের উৎস।

সম্প্রতি সরকার আবারো লকডাউন ঘোষনা করলে বেকায়দায় পড়ে যায় পৌর এলাকার ১২নং ওয়ার্ড়ের স্থানীয় মানুষ। বেকার হয়ে পড়ে পর্যটন সম্পৃক্ত থাকা হাজারো মানুষ ।

স্থানীয় প্রশাসন কিছু ত্রান সামগ্রী দিলেও তা যৎ সামন্য হওয়াতে এই অসহায় মানুষের পাশে এসে দাড়ান তরুন সমাজ সেবক শাহেদ আলী শাহেদ।তিনি স্থানীয় থেকে শুরু করে দলের নেতাকর্মীদের খেয়াল রেখেছেন ।

শাহেদ আলী এই করোনাকালিন সময়ে কলাতলী এলাকায় অসহায় মানুষের পাশে খাদ্যসামগ্রী নিয়ে হাজির হয়ে তাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন,এবং তা চলমান রয়েছে বলে জানা গেছে। এই পর্যন্ত হাজারো মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা পৌছে দিয়েছে বলে জানান কলাতলীর স্থানীয়রা।

কলাতলীর কামাল মিস্ত্রি জানান, বর্তমান করোনকালিন সময়ে ও রমজান মাসে শাহেদ আলী আমাদে পাশে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে দাড়িয়েছেন তা আমরা ভলতে পারবো না। তিনি আমাদের মতো অসহায় যারা রয়েছেন এই করোনাকালিন সময়ে তার অবদান আমরা কখনো ভুলবো না।

ফাতের ঘোনার হতদরিদ্র ছলিমা খাতুন জানান, সরকারের কঠোর লকডাউন ঘোষণায় ঘরে বসে দিন কাটাতে হচ্ছে। আয় না থাকায় অনিশ্চিত ছিল রমজানে জীবিকা নির্বাহ নিয়ে। কিন্তু এই উপহার সামগ্রী পেয়ে হাসি ফুটেছে পরিবারের সবার মাঝে। এই উদ্যোগ যেন অব্যাহত থাকে।

একই এলাকার জসিম উদ্দিন জানান. সত্যি শাহেদ একজন জনদরদী । এই রমজান মাসে তিনি যেভাবে আমাদের সকলকে যেভাবে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহযোগিতা করেছে তা আমরা মনে রাখবো।

লাইট হাউজের হোটেল কর্মচারি নাসির উদ্দিন জানান, পর্যটন ঘিরে তার আয়-রোজগার। কিন্তু করোনা সংক্রমণ উর্ধ্বমূখীর কারণে বন্ধ রয়েছে পর্যটন স্পট। এতে আর কক্সবাজার আসছেন না কোন পর্যটক। যার কারণে কর্মহীন হয়ে হতাশা নিয়ে পরিবার নিয়ে দিন কাটছে। তারমধ্যে শাহেদ ভাইয়ের উপহার পেয়ে অন্ধকারে যেন আলো জ্বলে উঠলো।

সোনা মিয়া জানান, এমন দুঃসময়ে পাশে থাকাই হচ্ছে প্রকৃত বন্ধুর পরিচয়। শাহেদ আলী আমাদেও দুঃসময়ের বন্ধুর পরিচয় দিয়েছে । আমরা কৃতজ্ঞ তার কাছে।

কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক তরুণ সমাজসেবক জননেতা শাহেদ আলী শাহেদ বলেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নে সরকার নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নে কাজ করছে পৌর আওয়ামী লীগ। পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মী, হতদরিদ্র, অসহায় ও কর্মহীন মানুষের মাঝে সামান্য উপহার তুলে দিতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে করছি।

করোনা মহামারীর এই সংকটে বিত্তবানেরা অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ালে অনেকটা লাঘব হবে দুঃখকষ্ট। তাদের মুখে হাসি ফুটলে মিলবে সুখ আর প্রশান্তি। সুসময়ে ও দুঃসময়ে কক্সবাজার পৌরসভার ১২নং ওয়ার্ডের মানুষের পাশে আমি নির্ভিক সৈনিকের ন্যায় আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকবো। কারণ এসব মানুষের ভালবাসায় আমার বেঁচে থাকার আসল অনুপ্রেরণা।

আমি মনে করি যারা পর্যটন ব্যবসার সাথে জড়িত তাদের সকলের উচিৎ এই করোনাকালিন সময়ে যাদের মাধ্যমে আমরা আয় করি তাদের পাশে দাঁড়ানো।

আশা করছি স্থানীয় প্রশাসন আমার ১২ ওয়ার্ড়ের অসহায় মানুষের পাশে সবসময় থাকবেন।

 

 

 

কক্সমর্নিং-সোহাগ