রেড জোন ঘোষনার প্রথম দিন থেকে স্বেচ্ছাসেবী হয়ে মাঠে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ।

প্রকাশিত: ১১:০৮ অপরাহ্ণ, জুন ৬, ২০২০

কক্সবাজার প্রতিনিধি :   কক্সবাজারে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার উদ্বেগজনক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় জনস্বার্থে সমগ্র কক্সবাজার জেলাকে রেড, অরেঞ্জ এবং গ্রীন তিনটি জোনে বিভক্ত করা হয়েছে। কক্সবাজার পৌরসভার সকল ওয়ার্ডে ০৬ জুন ২০২০ খ্রি. রাত ১২.০০ টা হতে ২০ জুন ২০২০ খ্রি. রাত ১১.৫৯ মি. পর্যন্ত মানুষ ও যানবাহন চলাচলের উপর বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।

এমন অবস্থায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের নির্দেশক্রমে বিশেষ পরিচিতি পত্র নিয়ে কোবিড ১৯ মোকাবেলায় রেড জোন এলাকায় স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে মাঠে কাজ করতে নেমে পড়েন, কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও কক্সবাজার পৌর ছাত্রলীগের ছাত্র-বৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আসাদুজ্জামান নিরু উল্লেখ্য সে করোনাভাইরাস এর শুরু থেকে জেলা প্রশাসক কর্তৃক বিশেষ পরিচিতি পত্র নিয়ে নিজ উদ্যোগে করোনা সংক্রমণের বিভিন্ন প্রোগ্রাম করে থাকেন। করোনাভাইরাসের শুরুতেই নিজের অর্থায়নে দুই দফায় মাক্স, সেনিটাইজার, গ্লাপস, সাবান বিতরণ করেন। এবং হতদরিদ্র পরিবারের পাশে দাঁড়ান ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণে লবনচাষীর পাশে দাড়িয়ে লবন গুদামে পৌঁছে দিয়ে সারা বাংলাদেশে ছাত্রলীগের সুনাম অর্জন করেন একমাত্র এই কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান নিরু। এবং সাইক্লোন ঘূর্ণিঝড় আম্পানের সময় ও গ্রামঅঞ্চলে সতর্কতামূলক মাইকিং করেন। প্রাই সময় করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধের মাইকিং ও জীবানু নাশক স্পে করেন। বাংলাদেশে করোনাভাইরাস আসার পর থেকে ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান নিরুর করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে একটার পর একটা যে কাজ গুলা করে যাচ্ছে তা আসলেই প্রসংসনীয়। তিনি বলেন মহান আল্লাহ্ ফাঁক যতদিন সুস্হ রাখবেন ততদিন এই সেবা মূলক কাজ করে যাবেন বলে জানান।

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ নেতা আসাদুজ্জামান নিরু জনগনের উদ্দেশ্যে বলেন— এই মহামারি করোনাভাইরাস থেকে আমরা সবাই বাঁচতে অনুগ্রহপূর্বক নিজের, পরিবারের ও জনস্বার্থে আরোপিত বিধি-নিষেধ মেনে চলুন। আপনাদের সহযোগিতা আমাদের একান্ত কাম্য।
ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন।